পানির নিচে কৃষকদের সম্ভাবনাময়ি স্বপ্ন

আনোয়ারা-পানির নিচে-কৃষক-সম্ভাবনা

মো. জাবেদুল ইসলাম, আনোয়ারা প্রতিনিধি : সারা দেশে বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট নিম্নচাপের কারণে অসময়ের হঠাৎ বৃষ্টিতে চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজেলার বেশিরভাগ শীতকালীন সবজি ক্ষেত তলিয়ে গেছে পানিতে।

ফলন ঘরে তোলার আগেই নষ্ট হয়ে গেছে আলু, সিম, বাদাম ও শালগম। শঙ্কায় রয়েছেন কৃষকরা। এছাড়া মাঠে কেটে রাখা আমন নিয়েও চরম বিপাকে পড়েছেন তারা। কৃষকদের সম্ভাবনাময়ি স্বপ্ন এখন পানির নিচে।

গতকাল বৃহস্পতিবার সাঙ্গু নদীর তীরবর্তী ফকিরার চর এলাকায় দেখা যায়, আগাম শীতকালীন সবজি সিম, লাউ ও বেগুনের ক্ষেতও কিছুটা ক্ষতিগ্রস্ত।

এসব এলাকায় সবেমাত্র মৌসুমি মরিচ, আলু, মিষ্টি আলু, বাদাম, শালগম রোপণ করা হয়েছে। আবার কেউ কেউ সবজি রোপণ করেছেন সপ্তাহখানেক আগে।

এছাড়া অনেক কৃষক ক্ষেত তৈরি করছেন। অসময়ের টানা বৃষ্টির কারণে এসব শীতকালীন মৌসুমি সবজিও নষ্ট হওয়ার শঙ্কায় রয়েছেন কৃষকরা।

টানা বৃষ্টির কারণে উপজেলার যেসব এলাকা বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো হাইলধর এলাকার কৃষির প্রাণকেন্দ্র ফকিরারচর, রায়পুর, জুইদণ্ডী ও বটতলী।

আজকালের মধ্যে বৃষ্টি না থামলে বীজতলা টিকিয়ে রাখার সম্ভাবনা কমে যাবে। এদিকে টানা বৃষ্টিতে রোপণকৃত আলু ও চীনা বাদাম নষ্ট হওয়ার শঙ্কায় রয়েছেন স্থানীয় কৃষকরা। এছাড়া মরিচ ও সিমের বিচি নষ্ট হতে পারে।

ফকিরার চর এলাকার কৃষক আব্দুল হামিদ বলেন, হঠাৎ বৃষ্টি শুরু হওয়ায় আলু ও সিম বিচি নষ্ট হয়ে গেছে। অন্যদিকে বেশি নষ্ট হওয়ার শঙ্কায় রয়েছে মৌসুমি মরিচ। এসব মরিচ নষ্ট হলে ক্ষতিগ্রস্ত হবেন চর এলাকার কৃষকরা।

বৈরাগ ইউনিয়ন কৃষক আব্দুর রাজ্জাক জানান, টানা বৃষ্টি কারণ মাঠে কেটে রাখা আমন ধান এখন পানিতে ডুবে গেছে। এখন কি করবো বুঝতে পারছি না। কিভাবে পানিতে ডুবে যাওয়া ধানগুলো বাড়িতে নেবো।

আনোয়ারা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রমজান আলী বলেন, আমন মৌসুমে হঠাৎ টানা বৃষ্টির কারণে সবজির ওপর নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে।

আমরা উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দিয়েছি। সব এলাকার রিপোর্ট নিচ্ছি। কৃষকদের পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। আশা করি, বৃষ্টি আর না হলে সবজির তেমন ক্ষতি হবে না।

ডিখ/প্রিন্স