লকডাউনের ৩য় দিনে জেলা প্রশাসনের ৪৫ মামলা

লকডাউনের ৩য় দিনে জেলা প্রশাসনের ৪৫ মামলা

মহানগরের খবর : করোনা সংক্রমনের উর্ধ্বগতি রোধে সারাদেশের ন্যায় চট্টগ্রামেও চলছে কঠোর লকডাউন। লকডাউন বাস্তবায়ন করতে ১ জুলাই থেকে মাঠে নেমেছে প্রশাসন।

আজ শনিবার লকডাউনের তৃতীয় দিন সন্ধ্যা পর্যন্ত জরুরী প্রয়োজন ছাড়া বাইরে ঘুরাঘুরি করা এবং নগরীর বিভিন্ন দোকান, রেস্টুরেন্ট ও শপিং মলে অভিযান চালিয়ে ৪৫টি মামলা দিয়েছে জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমান আদালত।

এ সময় তাদের কাছ থেকে ২৩ হাজার ৭শ ৫০ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে। তাছাড়া সাধারণ মানুষকে স্বাস্থ্য বিধি প্রতিপালনে সচেতন করেছে ম্যাজিস্ট্রেট।

আজ সারাদিনে চট্টগ্রামের নয়জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মহানগরীর বিভিন্ন স্থানে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন।

এরমধ্যে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিবেদিতা চাকমা নগরীর পাঁচলাইশ এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৫ মামলায় মোট ১৮০০ টাকা অর্থদণ্ড আদায় করেন। কাজির দেউরী এলাকায় অভিযান পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আশরাফুল হাসান, তিনি ৭ মামলায় এক হাজার ৫০ টাকা অর্থদণ্ড আদায় করেন।

অন্যদিকে খুলশী ও বায়েজিদ এলাকায় অভিযান পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. ইনামুল হাসান, এ সময় তিনি ২ মামলায় ১ হাজার টাকা অর্থদণ্ড আদায় করেন। পতেঙ্গা ও ইপিজেড এলাকায় অভিযান পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এহসান মুরাদ। তিনি ৪ মামলায় ২ হাজার ৭শ টাকা অর্থদণ্ড আদায় করেন।

সদরঘাট ও কোতোয়ালি এলাকায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. রাজিব হোসেন মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে ৫ মামলায় ১ হাজার ৬শ টাকা অর্থদণ্ড আদায় করেন।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সুরাইয়া ইয়াসমিন পাহাড়তলি ও আকবরশাহ এলাকায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে ৬ মামলায় ৩ হাজার টাকা অর্থদণ্ড আদায় করেন। অন্যদিকে চাদগাঁও এলাকায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট প্লাবন কুমার বিশ্বাস। তিনি ৭ মামলায় ৭ হাজার ৮শ টাকা অর্থদণ্ড আদায় করেন।

হালিশহর এলাকায় মোবাইল কোর্ট অভিযান পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট প্রতীক দত্ত। তিনি ৫ মামলায় ২ হাজার ৭শ টাকা অর্থদণ্ড আদায় করেন।

পাশাপাশি ডবলমুরিং এলাকায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে ৪ মামলায় মোট ২ হাজার ১শ টাকা অর্থদণ্ড আদায় করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সোনিয়া হক।

করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের সংক্রমণ বিস্তার রোধ করার লক্ষ্যে জেলা প্রশাসন, চট্টগ্রাম নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করে আসছে। এই অভিযান অব্যাহত থাকবে জানায় জেলা প্রশাসন।

ডিখ/সৃষ্টি