২৫ বছর বয়সীদের নিবন্ধন শুরু, ৮ আগষ্ট থেকে আঠারোর্ধ্বরাও পাবে টিকা

করোনা-বয়সীদের-নিবন্ধন শুরু-টিকা

দেশের খবর,জাতীয়।। প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের টিকা দেয়ার বয়সের সীমা আরো অনেক কমেছে। ধাপে ধাপে কমিয়ে এখন থেকে টিকার জন্য নিবন্ধন করতে পারছেন ২৫ বছর বয়সীরাও। তাছাড়া আগামী ৮ আগস্ট থেকে ১৮ ও তদূর্ধ্ব বয়সী সকলেই টিকার নিবন্ধন করতে পারবেন।

আজ বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) বিকালে এ তথ্য জানিয়েছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, ‘৮ আগস্ট থেকে যাদের বয়স ১৮ বা তার চেয়ে বেশি, তাদের নিবন্ধন শুরু হবে। যাদের জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) আছে তারা অনলাইনে নিবন্ধন করতে পারবেন।’

যাদের এনআইডি নেই তাদের জন্য কী ব্যবস্থা জানতে চাইলে পলক বলেন, ‘কারও বয়স ১৮ হলেই তিনি টিকা নেওয়ার জন্য উপযুক্ত হবেন।

যাদের এনআইডি নেই তারা সংশ্লিষ্ট টিকাদান কেন্দ্রে সরাসরি উপস্থিত হয়ে টিকা নিতে পারবেন, তবে সেজন্য সংশ্লিষ্ট এলাকার মেয়র, উপজেলা পরিষদ অথবা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের প্রত্যয়নপত্র লাগবে। অর্থাৎ ওই এলাকার জনপ্রতিনিধির প্রত্যয়নপত্র প্রয়োজন হবে।’

প্রতিমন্ত্রী জানান, ১৮ ও তদূর্ধ্ব বয়সীরা টিকা নেওয়ার পরে তাদের জাতীয় পরিচয়পত্র দেওয়ার ব্যাপারে সুপারিশ করা হবে।

অন্যদিকে সবাইকে টিকার আওতায় আনতে ধারাবাহিকভাবে বয়সসীমা কমিয়ে আনা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এবিএম খুরশীদ আলম।

বৃহস্পতিবার টিকা নেওয়ার সর্বনিম্ন বয়স ২৫ নির্ধারণ করা হয়। সেই মতে নিবন্ধনও শুরু হয়েছে। বৃহস্পতিবার করোনাভাইরাসের টিকার জন্য সরকারের সুরক্ষা অ্যাপ্লিকেশনে গিয়ে দেখা গেছে, কোভিড নিবন্ধন ফর্মে নাগরিক নিবন্ধনের ঘরটিতে ২৫ বছর বা তার বেশি বয়সীদের নিবন্ধনের সুযোগ রয়েছে।

প্রসঙ্গত : ৪০ বছর বা এর বেশি বয়সীরা নিবন্ধনের সুযোগ রেখে গত ২৬ জানুয়ারি টিকার জন্য নিবন্ধন শুরু হয়। গত ৫ জুলাই নতুন টিকা দেশে আসার পর আরও পাঁচ বছর কমিয়ে টিকার নিবন্ধনের জন্য বয়সসীমা নির্ধারণ করা হয় ৩৫ বছর।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে আরো ৫ বছর কমিয়ে বয়স সীমা ৩০ করা হয় ১৯ জুলাই। সর্বশেষ আজ ২৯ জুলাই বয়সসীমা ২৫ করা হয়।

ডিখ/প্রিন্স